অচল সড়ক সচল করলেন আ.লীগ নেতা লিটন

রাকিবুল ইসলাম রাকিব
প্রকাশিত : সোমবার ২৭ জুলাই, ২০২০ /

সংস্কারের অভাবে বড় বড় গর্ত ও ভাঙ্গাচোরা অবস্থা হয়েছিল ময়মনসিংহের গৌরীপুরের ভাংনামারী ইউনিয়নের বারুয়ামারী গ্রামের দুটি কাঁচা সড়কের। শুকনো মওসুমে সড়ক চলাচলের জন্য সচল থাকলেও বর্ষা মওসুমে কাদা-পানি জমে প্রায় অচল হয়ে যেত সড়ক দুটি । ফলে দুর্ভোগে পড়তো স্কুল শিক্ষার্থী, যানবাহন চালক ও গ্রামের বাসিন্দারা।

এমন অবস্থায় তাদের দুর্ভোগ লাঘব করতে এগিয়ে এসেছেন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ডক্টর সামীউল আলম লিটন।

নিজস্ব অর্থায়নে আওয়ামী লীগের এই নেতা ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে কাঁচা সড়ক নতুন ইটের সলিং করে মেরামত করার উদ্যোগ নিয়েছেন।

জানা গেছে, উপজেলার ভাংনামারী বারুয়ামারী গ্রামের দুটি কাঁচা সড়কটি দিয়ে বারুয়ামারী, খানপাড়া সহ আশেপাশের কয়েক গ্রামের মানুষ উপজেলা শহরে যাতায়াত করে। তাদের মধ্যে চাকরিজীবি, স্কুল-কলেজ শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ী, কৃষক সহ নানা পেশার মানুষ রয়েছে। গ্রামের শিক্ষার্থীদেরও এই সড়ক হয়ে বিদ্যালয়ে যাতায়াত করতে হয়। কিন্ত বর্ষায় সড়কের বেহালশায় তাদের দুর্ভোগে পড়তে হতো।

স্থানীয়রা জানান, ব্রহ্মপুত্র নদঘেঁষা ভাংনামারী ইউনিয়নের গ্রামগুলোতে ধান সহ বিভিন্ন ধরণের সবজি উৎপাদিত হয়। কিন্ত বর্ষা মওসুমে সড়কের বেহালদশার কারণে কৃষকের ধান ও সবজি বাজারজাত করতে বিপাকে পড়তে হয়। পাশাপাশি গ্রামের কেউ অসুস্থ হলে হাসপাতালে নিতে গেলেও সড়কের কারণে বিপাকে পড়তে হত স্বজনদের। তাই আওয়ামী লীগ নেতা লিটনের উদ্যোগে সড়ক মেরামতের কাজ শুরু হলে গ্রামবাসীর মুখে হাসি ফুটে উঠে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডক্টর সামীউল আলম লিটন বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমৃত্যু মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করে গেছেন। প্রিয় নেতার জন্মশতবার্ষিকী মুজিববর্ষ উপলক্ষে ব্যতিক্রম কিছু করতে গিয়ে গ্রামের চলাচল অনুপযোগী সড়ক দুটি নিজস্ব অর্থায়নে মেরামত করার উদ্যোগ নিয়েছি। সড়কের কাজ শুরু হওয়ার পর গ্রামবাসীর মুখে যে হাসি ফুটে উঠেছে সেটাই আমার পরম পাওয়া।

সরজমিনে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ভাংনামারী ইউনিয়নের বারুয়ামারী স্কুলরোড থেকে দক্ষিণ পাড়া ঈদ গা মাঠ ও বারুয়ামারী পূর্বপাড়া থেকে স্কুলরোড পর্যন্ত এক কিলোমিটার সড়ক মেরামত করার কাজ শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে সড়কের ভাঙা অংশ ও গর্ত ভরাট করা হয়েছে। দুপাশে ইট দিয়ে তৈরি করা হয়েছে গার্ড ওয়াল। এরপর বালু ফেলে নতুন ইট দিয়ে সলিং কাজ করছে শ্রমিকরা।

বারুয়ামারী গ্রামের আব্দুল জব্বার বলেন, এই অঞ্চলের সর্ববৃহৎ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় ভাংনামারী ঈদ গা মাঠে। আশেপাশের বিভিন্ন গ্রামের মানুষ এই সড়ক হয়ে ঈদ গা মাঠে আসে। তাই সড়ক মেরামত হওয়ায় গ্রামবাসীর কাছে এটি হবে ঈদ উপহার।

বারুয়ামারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসী বলেন, স্কুলে আসতে গিয়ে কত শিক্ষার্থীর বই-খাতা এই সড়কের কাদা-পানিতে পড়ে নষ্ট হয়েছে তার হিসেব নেই। এখন সড়ক মেরামত করায় আমরা খুশি। বাড়ি থেকে দৌড় দিয়েই স্কুলে এসে পড়বো।

এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) আবু সালেহ মোহাম্মদ ওয়াহেদুল হক জানান, এই সড়ক নতুন প্রকল্পের অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। বরাদ্দ পাওয়া গেলে বছরের মধ্যে সড়ক পাকাকরণ করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :