ঈশ্বরগঞ্জে বোনের মেয়েকে অপহরণ, খালা-খালু গ্রেপ্তার

প্রকাশিত: ১০:৫৭ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২০, ২০২০

বোনের মেয়েকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় শারমিন আক্তার। পরে পরিচয় গোপন করে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ চাওয়া হয়। অন্যথায় সন্তানের লাশ পাবে বলে দেওয়া হয় হুমকি। এতে দিশাহীন হয়ে পড়েন আড়াই বছরের শিশু মার্জিয়ার বাবা-মা। খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান শুরু করে। উদ্ধার করা হয় শিশুটিকে। গ্রেপ্তার করা হয় অপহরণকারী খালা-খালুকে। এমন ঘটনা ঘটেছে ময়মনসিংহের গৌরীপুরে।

উপজেলার ভাংনামারী ইউনিয়নের খোদাবপপুর গ্রামের দুলাল মিয়া ও কল্পনা আক্তার দম্পতির সন্তান মার্জিয়া আক্তার। সে গত বৃহস্পতিবার বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়। ওইদিন সন্ধ্যার পর তার বাবার মোবাইল ফোনে কল করে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ ও হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। খবরটি জানানো হয় গৌরীপুর থানা পুলিশকে।

পরে ওসি বোরহান উদ্দিনের নেতৃত্বে প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে অপহরণকারীদের অবস্থান শনাক্ত করা হয়। শুক্রবার রাতে অভিযান চালানো হয় ঈশ্বরগঞ্জের তারুন্দিয়া ইউনিয়নের বৃধীতপুর গ্রামে। সেখানের একটি বাড়ি থেকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় শিশু মার্জিয়াকে। ওই সময় গ্রেপ্তার করা হয় শারমিন আক্তার ও তার স্বামী মুখলেছ মিয়াকে। মুখলেছের বাড়ি ত্রিশালে। পরে তাদের বিরুদ্ধে মামলা শেষে শনিবার বিকেলে ময়মনসিংহ আদালতে সোপর্দ করা হয়।

ওসি বলেন, শিশুটির খালা বিয়ের পর দেবরের সঙ্গে পালিয়ে যায়। পরে বাবা ও শ্বশুরবাড়ি কোথাও আশ্রয় না পেয়ে নিজের বোনের মেয়েকে অপহরণ করে মুক্তিপণ চায়।