গৌরীপুরে অজ্ঞাত রোগে মারা গেল স্বপনের ১২শ হাঁস !

আলম ফরাজী
প্রকাশিত : বুধবার ২৩ জুন, ২০২১ /

আর মাত্র তিনদিন পরেই স্বপ্নের ফসল ঘরে উঠার কথা ছিল স্বপন মিয়ার(২৮)। কিন্তু এক অজ্ঞাত রোগে গত দুইদিনে ১২শ হাঁস মরে যায় চোখের সামনে। রোগে আক্রান্ত হয়ে হাঁসগুলি যেভাবে ছটফট করে মারা গেছে ঠিক সেই রকম ছটফট করেছিলেন স্বপন। গত সোমবার ও গতকাল মঙ্গলবার ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার মাওহা ইউনিয়নের নয়ননগর বাউশালীয়া গ্রামের ওই যুবকের বিক্রি যোগ্য হাঁসগুলি মরে স্বপ্ন ধুলিস্যাৎ হয়ে গেছে।

স্থানীয় সুত্র ও স্বপন মিয়া জানান,তিনি এক দরিদ্র কৃষক পরিবারের সন্তান। গার্মেন্টেসে চাকুরি করা অবস্থায় করোনাকালে চাকরিটি চলে যায়। এরপর থেকে কর্মহীন হয়ে পড়ায় তিনি নিজের জমানো টাকা ও ঋণ করে প্রায় দেড় লাখ টাকা পূজি কাটিয়ে ১২শ হাঁস ক্রয় করেন। আলাদা একটি খামার তৈরি করে সেখানে একদিন বয়সের হাঁসগুলি রেখে প্রতিদিন কাকডাকা ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত তিনি পরিচর্যার জন্য বাড়ির পাশে বিল ও ডোবায় নিয়ে যায় হাঁসগুলিকে। ধান ও গুটি খাবার ক্রয় করে হাঁসগুলিকে স্বযত্নে খাওয়ানো ছাড়াও প্রয়োজনীয় ঔষুধও দিয়েছেন। এ অবস্থায় হাঁস গুলির বয়স হয়েছিল ২মাস ৭দিন। আর তিনদিন পরেই পাইকারের কাছে বিক্রি করে দেওয়ার কথা ছিল। ১৬ হাজার টাকা শ’তে বিক্রির কথাবার্তাও সম্পন্ন ছিল। এতে তাঁর প্রায় ২লাখ টাকা হস্তগত হতো। কিন্তু সব স্বপ্ন শেষ করে দিয়ে এক অজ্ঞাত রোগে গত দুই দিনে থেমে থেমে হাঁসগুলি মরে যায় চোখের সামনে।

স্বপন জানান, একদিন বসের বাচ্চা ক্রয় করার পরেই টিকা ও প্রয়োজনীয় ঔষুধ প্রয়োগ করা হয়েছিল। তারপরও কেন এতো দ্রæত হাঁসগুলি মারা গেল তা বোধগম্য নয়।এক সাথে ১০/১২টি খিঁচুনি দিয়েই ছটফট করে মারা যায়।এভাবে সারাদিন চলে পরদিন আবারও।

আপনার মতামত লিখুন :