গৌরীপুরে কালা বাবুল বিক্রি হবে ৬ লাখ টাকায়

মশিউর রহমান কাউসার ও ফারুক আহাম্মদ
প্রকাশিত : বুধবার ৭ জুলাই, ২০২১ /

কালা বাবুল নামে এই ষাঁড়টি ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার প্রাণি সম্পদ মেলায় এ বছর ২য় স্থান অধিকার করেছে। প্রায় ৮ ফুট দৈর্ঘ্য, ৫ ফুট উচ্চতা ও ৩ বছর বয়সী এই ষাঁড়টি ওজন প্রায় ৯শ কেজি। শাহীওয়াল জাতের এই ষাঁড়টির দাম হাঁকা হয়েছে ৬ লাখ টাকা।

ষাঁড়ের মালিক গৌরীপুর উপজেলার পশ্চিম কাউরাট গ্রামের তামিমা ডেইরি ফার্মের উজ্জল মিয়া (মোবাইল-০১৯১১-৮৬১৯১২)। এ ষাঁড়টিকে দেখার জন্য প্রতিদিন তার বাড়িতে ভিড় জমছে মানুষের। এসময় অনেকে ষাঁড়টিকে কেনার জন্য দর দামও করছেন, কিন্তু কাঙ্খিত মুল্য না হওয়ায় ষাঁড়টিকে বিক্রি করছেন না ওই খামারি।

উজ্জল মিয়া জানান, ২০১৭ সনে বাড়িতে তামিমা ডেউরি ফার্ম নামে এ গরুর খামারটি স্থাপন করে তিনি ও তার স্ত্রী দু’জনে মিলে গরু লালন পালন করে আসছেন। প্রতি বছরও কোরবানির হাটে দু’একটি করে ষাঁড় বিক্রি করে কম বেশি লাভবান হচ্ছেন তারা। গত কোরবানি ঈদে ৮টি গরু বিক্রি করেছেন তারা। সে বছর তেমন লাভ হয়নি তাদের। এ বছর কালা বাবুল ও ছোট আরও ১টি ষাঁড় বিক্রি করে লাভের স্বপ্ন দেখছেন তারা। কঠোর লকডাউনে বর্তমান অনলাইন বাজারে ষাঁড় বিক্রি করে ন্যায্য দাম পাবেন কিনা এ নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে তাদের মনে।

তিনি আরও জানান, কালা বাবুল নামে ষাঁড়টি লালন পালনে অনেক শ্রম ও অর্থ ব্যয় হয়েছে। এ ষাঁড়টির পেছনে ছোলা, ডাল, গম, ভুট্টা, কুঁড়ো, খইল, ভূষি, ভাত ও কাঁচা ঘাস বাবদ বর্তমানে প্রতিদিন ব্যয় হয় ৫শ টাকা। ষাঁড়টি ৬ লাখ টাকা বিক্রির আশা থাকলেও করোনাকালে এবার অনলাইন হাটের ওপর ভরসা করতে পারছে না তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :