গৌরীপুরে লকডাউনে বৃদ্ধি পাচ্ছে চুরি!

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশিত : রবিবার ৪ জুলাই, ২০২১ /

গৌরীপুরে লকডাউনে বাজার ফাঁকা ও পাহারাদার না থাকায় চুরির ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত দু’দিনে গৌরীপুর পৌর শহরে কালিপুর বাজার ও উপজেলার নাহড়া বাজারে চারটি দোকানে চুরি সংগঠিত হয়েছে। এদিকে চুরির ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় স্থানীয় বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের মাঝে বর্তমানে চোর আতঙ্ক বিরাজ করছে।

জানা গেছে, শনিবার রাতে গৌরীপুর থানা থেকে মাত্র ১০০ গজ দূরে পৌর শহরের কালিপুর দৈনিক বাজারে মজিবুর রহমান, ঈমান আলী ও শফিকুল ইসলামের দোকান থেকে নগদ টাকা ও মালামাল চুরির ঘটনা ঘটে। এর আগে শুক্রবার রাতে বোকাইনগর ইউনিয়নের নাহড়া বাজারে সিরাজুল ইসলামের তানিয়া ভ্যারাইটিজ স্টোরে চুরি সংগঠিত হয়।

সিরাজুল ইসলাম জানান, ঘটনারদিন লকডাউনের নিয়মানুযায়ী বিকাল ৫টায় দোকান বন্ধ করে চলে যান তিনি। নিষেধাজ্ঞা থাকায় রাতে আর দোকানে থাকেনি তিনি। শনিবার দোকানের সামনের সাঁটার খুলে দেখেন পিছনের দরজা ভেঙ্গে চোর ক্যাশ বাক্স থেকে ব্যবসার ১ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা নিয়ে যায়।

মজিবুর রহমান জানান, লকডাউনের কারনে তিনি বিকালে দোকান বন্ধ করে বাসায় চলে যান। এই সুযোগে দোকানে থাকা নগদ ৭ হাজার টাকা, ২টি ব্যাংকের চেক বই ও মুল্যমান কাগজপত্রটিসহ ক্যাশ বাক্সটি নিয়ে যায় চোর।
একই রাতে ঈমান আলী ও শফিকুল ইসলামের দোকান থেকে মালামাল চুরি হয়েছে। তারা জানান, বর্তমানে কালিপুর দৈনিক বাজারে কমিউনিটি পুলিশিং পাহারা না থাকায় স্থানীয় ব্যবসায়ীরা অরক্ষিত অবস্থায় আছেন।

চুরির বিষয়ে নাহড়া বাজার কমিটির সভাপতি ফেরদৌস মিয়া বলেন, বাজারে ৩জন পাহারাদার আছে, তারপরও চুরি হয়ে গেছে। এ ঘটনাটি গৌরীপুর থানার পুলিশ পরিদর্শন করেছেন বলে জানান তিনি।

উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি সাবেক পৌর মেয়র শফিকুল ইসলাম হবি জানান, ‘কমিউনিটি পুলিশিং এর দায়িত্ব পূর্বে আমাদের কাছে থাকলে বর্তমানে তা পৌরসভা নিয়ন্ত্রণ করে, যে কাররে বাজারে রাতে ডিউটির বিষয়টি তারা দেখাশুনা করে।’

গৌরীপুর পৌর সভার মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম সংবাদিকদের জানান, কালিপুর দৈনিক বাজারে পূর্বে কমিউনিটি পুলিশং এর পাহারা ছিলো। নিয়মানুযায়ী প্রতি দোকান দৈনিক ৫ টাকা দিতে হয়, যা দিয়ে পাহারাদারদের বেতন দেওয়া হয়। কিন্তু দৈনিক বাজারের ব্যবসায়ীরা এ টাকা দেন না, যে কারনে সেখান থেকে পাহারাদার প্রত্যাহার করা হয়েছে।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান আব্দুল হালিম সিদ্দিকী জানান, ‘চুরির বিষয়টি আমি এখনো জানি না। খোঁজ খবর নিচ্ছি।’

আপনার মতামত লিখুন :