শুভ্র হত্যা মামলায় পৌর মেয়র ও ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১৯ জনের নামে অভিযোগপত্র

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশিত : বুধবার ৫ মে, ২০২১ /

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেকলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান শুভ্র হত্যা মামলায় গৌরীপুর পৌর মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম ও ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদসহ ১৯ জনের নামে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। বুধবার (৫ মে) এ অভিযোগপত্র দাখিল করেন ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ।

এ মামলায় এজাহারভুক্ত আসামিরা হলেন গৌরীপুর পৌরসভার বর্তমান মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ রফিকুল ইসলাম (৫৫), তাঁর ছোট দুই ভাই যুবদল নেতা সৈয়দ তৌফিকুল ইসলাম (৪১) ও সৈয়দ মাজাহারুল ইসলাম জুয়েল (৩৮), উপজেলা বিএনপির একাংশের যুগ্ম আহ্বায়ক ও মইলাকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রিয়াদ উজ্জামান রিয়াদ (২৯), তাঁর ছোটভাই মাসুদ পারভেজ কার্জন (২৭), গৌরীপুর ছাত্রদল নেতা সাকিব আহমেদ রেজা (২৮), স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য মোজাম্মেল হক (৩০), খাইরুল ইসলাম (৩০), ছাত্রদলকর্মী রিফাত (২৫), ট্রাকচালক মো. আবু হানিফা (৩০), স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা জাহাঙ্গীর আলম (২৮), যুবদলকর্মী মজিবুর রহমান (৩০), ছাত্রদল নেতা সুমন (৩৩), যুবদলকর্মী রাসেল মিয়া (৩২)।

পুলিশের তদন্তকালীন সাক্ষ্য প্রমাণে এ মামলায় আরও পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে কামাল মিয়াকে (৩৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পলাতক রয়েছেন মো. মাইনউদ্দিন (২০), শরীফুল ইসলাম নাঈম (২২), রুহুল আমীন (২৮), শাহজাহান মিয়া (২৫)।

এ মামলায় পৌর মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম ও তার দুই ভাই এবং ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ উচ্চ আদালতের জামিন রয়েছেন।

বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহ কামাল আকন্দ জানান, বুধবার সকালে ময়মনসিংহের আদালত পুলিশের পরিদর্শক প্রসূন কুমার সেনের কাছে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। এতে অভিযুক্ত আসামিদের মধ্যে চারজন উচ্চ আদালতের জামিনে মুক্ত আছেন। নয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি রয়েছেন। বাকি আসামীরা পলাতক রয়েছেন। মামলায় ১৭ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন। আসামিদের মধ্যে অধিকাংশই বিএনপির নেতাকর্মী বলে তিনি জানান।

ওসি শাহ কামাল আকন্দ সাংবাদিকদের আরও জানান, মামলায় এজাহারনামীয় আসামি ছিলেন ১৪ জন। এর বাইরের তদন্তকালীন ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততার প্রমাণ পেয়ে আরও পাঁচজনকে নতুন আসামি করে অভিযোগপত্রে যুক্ত করা হয়। গত বছর ১৭ অক্টোবর শনিবার রাত রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার পৌর শহরের মধ্যবাজার এলাকায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মাসুদুর রহমান শুভ্রকে কুপিয়ে হত্যা করে অভিযুক্ত আসামিরা। ঘটনার পর নিহতের ছোট ভাই আবিদুর রহমান প্রান্ত বাদী হয়ে ১৪ জনের নামোল্লেখ করে গৌরীপুর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। ২২ অক্টোবর মামলার তদন্তভার পায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, নিহতের সঙ্গে উপজেলার বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদের সঙ্গে দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক বিরোধ ও ক্ষোভ ছিল। শুভ্র হত্যাকাণ্ডটি সম্পূর্ণ রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড।

আপনার মতামত লিখুন :