চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ, শিশু রক্তাক্ত

গৌরীপুর নিউজ
প্রকাশিত : মঙ্গলবার ৭ মে, ২০১৯ /

রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী চলন্ত পদ্মা আন্তঃনগর ট্রেনে পাথর ছুড়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে সালাম জাহান জিসান (৪) নামে এক শিশু মারাত্মকভাবে আহত হয়েছে। গত রোববার রাত ৮টার দিকে জামতৈল-ক্যাপ্টেন মনসুর আলী রেলওয়ে স্টেশনের মাঝামাঝি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী পদ্মা এক্সপ্রেসের যাত্রী ছিল জিসান। রাতেই তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নেয়া হয়। শিশুটি বর্তমানে হাসপাতালের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন আছে।

আহত জিসান নওগাঁর আত্রাই উপজেলার সোনাইকান্দা এলাকার আবদুস সালামের ছেলে। বাবা-মা ও বড় ভাইয়ের সঙ্গে ঢাকায় যাচ্ছিল জিসান।

আহত জিসানের মা জেমি জানান, বড় ছেলে শাফায়াত জাহান জাহিন ও ছোট ছেলে সালমান জাহান জিসানকে নিয়ে ঢাকায় যাচ্ছিলেন তারা। তারা ট্রেনের ৫১-৫২ ও ৫৬-৫৭ আসনের যাত্রী ছিলেন। দুই ছেলে বসেছিল জানালার ধারে। ছোট ছেলে জিসান ছিল তার বাবার পাশেই। জামতৈল রেলওয়ে স্টেশন পেরিয়ে কিছু দূর যাওয়ার পর জানালায় হঠাৎ আওয়াজ পান তিনি। ওই সময় জিসান লুটিয়ে পড়ে নিজ আসনে। টেনে তুলতেই তার মাথায় রক্তাক্ত জখম দেখতে পান বাবা। খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ট্রেন থামিয়ে দেন চালক। এরপর তাকে স্থানীয় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নেয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর রাতেই জিসানকে রামেক হাসপাতালে নেয়া হয়।

চিকিৎসকের বরাদ দিয়ে জেমি আরও জানান, জিসানের মাথায় আঘাত বেশ গুরুতর। সিটি স্ক্যানসহ বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা দিয়েছেন চিকিৎসক। সেগুলো সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু প্রতিবেদন এখনো হাতে পাননি।

এদিকে খবর পেয়ে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার খন্দকার শহিদুল ইসলাম সোমবার দুপুরে আহত শিশুটিকে দেখতে রামেক হাসপাতালে যান এবং তার চিকিৎসার বিষয়ে খোঁজখবর নেন। এ সময় তিনি বলেন, রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী পথে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা বেড়েছে। ট্রেন চলাকালীন দায়িত্বরতদের ট্রেনের জানালা বন্ধ রাখার বাধ্যতামূলক নির্দেশ জারি করা হয়েছে। পাশাপাশি পাথর নিক্ষেপের মাধ্যমে জানমাল ও রাষ্ট্রীয় সম্পদের অনিষ্টকারী দুর্বৃত্তদের শিগগিরই চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপের জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে রেলওয়ের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, গত একমাসে রাজশাহী-ঢাকা রুটে চলাচলকারী ট্রেনে ১৭টি পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। তবে এসব ঘটনায় জড়িত কাউকে এখনো আটক করা হয়নি।

আপনার মতামত লিখুন :