জামিনে এসে ফের ইয়াবাসহ গ্রেফতার মাদক সম্রাট কাজল

প্রকাশিত: ৭:৪৭ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৩, ২০২০

কয়লা ধূলে যেমন ময়লা যায়না, তেমনি মাদক সম্রাট কাজল সুস্থ জীবনে ফিরে আসার লোক নয়। জীবনে অসংখ্যবার জেল কেটেও শুধরাইনি সে। লোকে বলে জেলখানা যেন তার শ্বশুরবাড়ি। এক ডজন মামলার আসামী কাজলকে গৌরীপুর থানার পুলিশ সর্বশেষ একটি মামলায় ৯ জুন গ্রেফতার করে পরদিন আদালতে প্রেরণ করে। আদালতে প্রেরণের একদিন পরেই জামিনে বের হয়ে সে ফের শুরু করে দেয় মাদক ব্যবসা। জামিনে বের হওয়ার মাত্র এক সপ্তাহের মাথায় নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা থানার পুলিশ ১৮ জুন তাকে ইয়াবাসহ গ্রেফতার করে।

কে এই মাদক সম্রাট কাজল ?

মোঃ কাজল মিয়া (৪০) ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে। মাদক সেবনের পাশাপাশি প্রায় ২০ বছর ধরে সে বিভিন্ন মাদক ব্যবসার জড়িত। বিভিন্ন সময়ে মাদকসহ র‌্যাব, পুলিশ ও ডিবি পুলিশের হাতেনাতে গ্রেফতার হয়েছে অসংখ্যবার। তার বিরুদ্ধে গৌরীপুর থানায় মাদকসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে প্রায় এক ডজন মামলা রয়েছে।

স্থানীয় লোকজন জানান, কাজল একজন কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী, মাদকসেবী ও সন্ত্রাসী। সে প্রায় ২০ বছর ধরে মাদক সেবনের পাশাপাশি এলাকায় ইয়াবা, হেরোইন, ফেনসিডিল, মদ, গাঁজা বিক্রি করে স্থানীয় ছাত্র ও যুব সমাজকে ধ্বংস আসছে। তার বিরুদ্ধে গৌরীপুর থানায় সন্ত্রাসী ঘটনাসহ মাদকের একাধিক মামলা রয়েছে। বিভিন্ন মাদকদ্রব্য বিক্রির সময় র‌্যাব, ডিবি ও পুলিশ তাকে হাতেনাতে মাদকসহ একাধিকবার গ্রেফতার করলেও আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হয়ে পুনরায় এলাকায় সে মাদক ব্যবসা শুরু করে। কেউ এর প্রতিবাদ করলে ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের মাধ্যমে তাদেরকে হুমকী প্রদান ও মারধর করে থাকে সে।

গৌরীপুর থানা সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সনে ১০ জানুয়ারী গৌরীপুর উপজেলার ডেঙ্গার ফুলচর এলাকা থেকে ফেনসিডিলসহ কাজলকে আটক করে র‌্যাব। এসময় তার ব্যবহৃত মটর সাইকেলটি জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় ময়মনসিংহ র‌্যাব-৯ কোম্পানী-২ এর ডিএডি মোঃ ফরুক মিয়া গৌরীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। গৌরীপুর থানার মামলা নং-১ তাং ১০/০১/২০১২ ইং।

২০১৩ সনের ১২ নভেম্বর এ উপজেলার কলতাপাড়া এলাকা থেকে হেরোইনসহ কাজলকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ। এ ঘটনায় ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশের এস আই মোঃ শহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় একটি মামলা করেন। মামলা নং-০৬ তাং ১৩/১১/২০১৩ ইং।

২০১৫ সনে ২৪ আগস্ট গৌরীপুর পৌরসভার গুরুহাটা এলাকায় ইয়াবাসহ কাজলকে গ্রেফতার করে গৌরীপুর থানার পুলিশ। এঘটনায় এস আই জাহাঙ্গীর আলম গৌরীপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-২১ তাং-২৪/০৮/২০১৫ ইং।

২০১৭ সনে ২৮ জুলাই দৌলতপুর গ্রামে কাজলের বাড়ির সামনে থেকে গাঁজাসহ তাকে আটক করে গৌরীপুর থানার পুলিশ। এ ঘটনায় এএসআই মোস্তাক হোসেন বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-৩৩ তাং-২৮/০৭/২০১৭ ইং।
২০১৮ সনে ১ এপ্রিল এ উপজেলার হিম্মতনগর বাজারে ইয়াবাসহ কাজলকে আটক করে গৌরীপুর থানার পুলিশ। এ ঘটনায় গৌরীপুর থানার পিএসআই মোহাম্মদ শরীফ উদ্দিন বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলা করেন। মামলা নং-১/৬৬ তাং-০২/০৪/২০১৮ ইং।

২০১৯ সনে ৬ জানুয়ারি ২নং ইউনিয়নের জনৈক আহির উদ্দিনের বাড়ির সামনে ইয়াবাসহ কাজলকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন স্থানীয় জনগন। এ ঘটনায় এএসআই আখতারুজ্জামান বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় একটি মামলা করেন। মামলা নং-০৬ তাং-০৬/০১/২০১৯ ইং।

পূর্বধলা থানা সূত্রে জানা গেছে, ১৮ জুন বিকেলে নেত্রকোণা জেলার পূর্বধলা উপজেলার চৌরাস্তা এলাকা থেকে ইয়াবাসহ কাজলকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ঘটনারদিন কাজল ও নূরুল ইসলাম নামে এক সহযোগী উল্লেখিত এলাকায় ইয়াবা বিক্রি করছিল। খবর পেয়ে পূর্বধলা থানার পুলিশ ২৫ পিছ ইয়াবাসহ কাজলকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় পূর্বধলা থানার এস আই মোঃ আলা উদ্দিন বাদী একটি মামলা করেন (পূর্বধলা থানার মামলা নং-১৮ তাং-১৮/০৬/২০২০ ইং)।

গৌরীপুর থানার ওসি বোরহান উদ্দিন জানান, কাজলের বিরুদ্ধে মাদকসহ বিভিন্ন অভিযোগে গৌরীপুর থানায় ১০টি মামলা রয়েছে।