নাট-বল্টু যখন উটপাখির পেটে!

জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : বুধবার ৩ জুলাই, ২০১৯ /

অসাবধানতাবশত অনেক প্রাণীই অখাদ্য বস্তু খেয়ে ফেলে। কিন্তু সেই খাবার যদি হয় নাট-বল্টু, ইট-পাথর কিংবা প্লাস্টিকের টুকরা! তাহলে তা রীতিমতো অবাক হওয়ার মতোই ঘটনা। কেননা কোনো প্রাণী খাবার হিসেবে এমন কিছু গ্রহণ করলে পাকস্থলীতে পরিপাকে বিঘ্ন ঘটার মাধ্যমে মৃত্যুর মুখে পতিত হবে।

অবিশাস্য হলেও এমন ঘটনা ঘটেছে নেত্রকোনার এক চিড়িয়াখানার অপ্রাপ্ত বয়স্ক একটি উটপাখির ক্ষেত্রে। বুধবার (৩ জুলাই) বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) ভেটেরিনারি টিচিং হাসপাতালে পাখিটির অস্ত্রোপচার করে ওইসব বস্তু পান একদল চিকিৎসক। আর তাতে প্রাণে বেঁচে যায় উটপাখিটি।


জানা গেছে, বিভিন্ন লোহা জাতীয় বস্তু খাওয়ায় নেত্রকোনার একটি চিড়িয়াখানার দুটি উটপাখি অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে নেত্রকোনা থেকে বাকৃবিতে অবস্থিত ভেটেরিনারি টিচিং হাসপাতালে নেওয়ার আগেই মারা যায় একটি পাখি। অন্যটিকে হাসপাতালে আনা হলে ভেটেরিনারি টিচিং হাসপাতালের পরিচালক এবং সার্জারি ও অবস্টেট্রিক্স বিভাগের প্রফেসর ড. মো. রফিকুল আলম পরীক্ষা করে পাখিটির পাকস্থলিতে অখাদ্য বস্তুর উপস্থিতির বিষয়ে নিশ্চিত হন।

পরে ভেন্ট্রিকুলোস্টমি অপারেশনের মাধ্যমে পাকস্থলী থেকে ওইসব বস্তু অপসারণ করার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। অপারেশন টিমে তার সঙ্গে অংশ নেন- একই বিভাগের প্রফেসর ড. মো. মাহমুদুল আলম, সার্জারি ও অবস্টেট্রিক্স বিভাগের শিক্ষক ড. রুখসানা আমিন রুনা ও ডা. মোহাম্মদ রাগীব মুনীফ।


পাখিটিকে পুরোপুরি অজ্ঞান করে প্রায় আড়াই ঘণ্টাব্যাপী অপারেশনের মাধ্যমে পাকস্থলী থেকে দেড় কেজি ওজনের বিভিন্ন বস্তু অপসারণ করেন তারা।

অপসারিত বস্তুগুলোর মধ্যে ছিল- বিভিন্ন আকারের তার কাটা (৮ ইঞ্চি কাটা আটটি ও ১ ইঞ্চি কাটা ৩৩টি), দুটি নাট-বল্টু, লোহার চাবি, একটি চা চামুচ, একটি ১০ মিলি প্লাস্টিক সিরিঞ্জ, একটি প্লাস্টিক পেনিয়াম, ২ টাকা ও ৫ টাকার কয়েন, ১২টি টিনের চাকতি, পাঁচটি ৪ ইঞ্চি স্ক্রু, বিভিন্ন আকৃতির প্লাস্টিক ও কাচের টুকরা, চিপস-চকলেটের প্যাকেটের খণ্ড এবং পাথর ও ইটের ছোট ছোট টুকরা।

ভেটেরিনারি টিচিং হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. রফিকুল আলম বলেন, ‘আমরা পাখিটির ব্যাপারে শঙ্কিত ছিলাম। তবে অপারেশনের পর পাখিটি সুস্থ আছে।’

আপনার মতামত লিখুন :