নুসরাত হত্যাকাণ্ড: হঠাৎ কাঠগড়ায় সিরাজকে চড়-থাপ্পড় মারতে শুরু করল আসামিরা

প্রকাশিত: ৩:৪৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৪, ২০১৯

ফেনীর নুসরাত জাহান রাফিকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ডের রায় শোনার পর ক্ষুব্ধ আসামিদের মধ্যে কেউ কেউ মামলার প্রধান আসামি ও নির্দেশদাতা সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে মারধর করা শুরু করেন। এ সময় আসামিদের মধ্যে একজন জোরে জোরে গালি দিয়ে বলতে থাকেন, ‘তোর কারণে আমাদের ফাঁসি হয়েছে’।

আজ বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদ আজ বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে সব আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেন। এর আগে বেলা ১১টা ৭ মিনিটে জনাকীর্ণ আদালতের এজলাসে এসে হাজির হন বিচারক। তিনি সংক্ষিপ্ত রায় পড়েন। রায়ের ফাঁসির পাশাপাশি প্রত্যেক আসামিকে এক লাখ টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে। এই টাকা নুসরাতের পরিবারকে দেওয়ার কথা বলছেন আদালত। রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন নুসরাতের পরিবার ও তাঁর আইনজীবী। অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী আপিল করার কথা বলেছেন।

রায়ের আগে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা ৫০ মিনিটের দিকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে ফেনী জেলা কারাগার থেকে মামলার ১৬ আসামির সবাইকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়। পিনপতন নীরবতার মধ্যে বিচারক রায়ের কাজ শুরু করেন। রায় শোনার পর কাঠগড়াতেই কান্নায় ভেঙে পড়েন অনেক আসামি। রায়ের পর পরই কড়া নিরাপত্তার মধ্যে আসামিদের প্রিজনভ্যানে করে কারাগারে পাঠানো হয়। ঘটনাস্থলে দেখা যায়, নুসরাত হত্যা মামলায় ১৬ আসামিকে ফাঁসির আদেশের পর কারাগারে নেওয়ার সময় মামলার প্রধান আসামিসহ অন্যদের প্রিজনভ্যানে তোলা হয়। এ সময় তাঁদের কেউ কেউ কাঁদছিলেন। প্রিজনভ্যানে তোলার পর অন্যান্য আসামি সিরাজকে হঠাৎ করেই পেটাতে থাকেন। সে সময় তাঁকে বুকে-মুখে চড়-থাপ্পড় মারা শুরু করেন। সিরাজকে মারতে মারতে এ সময় আসামিদের কেউ কেউ বলতে থাকেন, ‘তোর কারণে আমাদের ফাঁসি হয়েছে’। এ সময় আসামি মো. জোবায়ের, জাবেদ হোসেন, মো. শামীম, প্রভাষক আফছার উদ্দিন, হাফেজ আবদুল কাদের কান্নায় চিৎকার করতে থাকেন। তাঁরা বলতে থাকেন, ‘আত্মহত্যাকে হত্যা বলা হয়েছে।’ পরে পুলিশ গিয়ে আসামিদের শান্ত করেন। এরপর প্রিজনভ্যান চলা শুরু করে কারাগারের দিকে।

মামলার রায় শুনতে আদালতে নুসরাতের পরিবারের সদস্য ছাড়াও মামলার আইনজীবী, গণমাধ্যমকর্মী ও আসামিদের স্বজনরাও হাজির ছিলেন। আদালত চত্বরে কড়া নিরাপত্তার মধ্যেও উৎসুক মানুষের ভিড় লক্ষ করা গেছে।