নেত্রকোনায় কালভার্ট ধসে শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়কে যান চলাচল বন্ধ

উপজেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : বুধবার ১ জানুয়ারী, ২০২০ /

৩১৬ কোটি টাকায় বছরখানেক আগে নির্মাণ করা হয় নেত্রকোনার শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়ক। এ প্রকল্পের অধীনে ১২টি সেতু নতুন করে নির্মাণ করা হলেও বাদ পড়ে যায় জারিয়ায় অবস্থিত একটি কালভার্ট। গত সোমবার বিকালে এ কালভার্টটিই মাঝ বরাবর ধসে পড়েছে। এতে শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে ওই সড়কে কয়েকশ বালিবাহী ট্রাক ও যাত্রীবাহী বাস আটকে পড়েছে।

জানা গেছে, ভারতের সীমান্তবর্তী উপজেলা নেত্রকোনার দুর্গাপুর প্রাকৃতিক সম্পদে সমৃদ্ধ। তাছাড়া পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে উপজেলাটি বেশ সুপরিচিত। শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়ক ঢাকা ও ময়মনসিংহসহ দেশের অন্যান্য অঞ্চল থেকে এ উপজেলায় যাতায়াতের প্রধান মাধ্যম। এই সড়ক দিয়েই সোমেশ্বরী নদী থেকে উত্তোলিত বালি, কয়লা, সাদা মাটি, নুড়ি পাথর, পাহাড়ি কাঠসহ বিভিন্ন মালামাল দেশের বিভিন্ন স্থানে পরিবহন করা হয়। এ সড়কটি বিরিশিরি-বিজয়পুর স্থলবন্দর সড়ক এবং আন্তঃজেলা সীমান্ত সড়কের সঙ্গেও যুক্ত।

২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৩১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২টি সেতুসহ পূর্বধলার শ্যামগঞ্জ থেকে দুর্গাপুর উপজেলা সদর পর্যন্ত ৩৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সড়কটি নতুন করে নির্মাণ করা হয়। তবে ওই সময়ে পূর্বধলার জারিয়ায় আনসার ক্যাম্পের সামনে অবস্থিত কালভার্টটি সংস্কার করা হয়নি। সড়ক নির্মাণের পরে ওই কালভার্টটি ক্ষতিগ্রস্ত হলে যান চলাচল অব্যাহত রাখতে পাটাতন দেয়া হয়। তবে গতকাল পাটাতনসহ কালভার্টটি মাঝ বরাবর ধসে গেছে। এতে শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়কে যান চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে।

স্থানীয়রা জানান, কালভার্টটি আগে থেকেই ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। বালিসহ বিভিন্ন পণ্যবাহী ভারী যানবাহন চলাচলের কারণে এটি আরো ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গত সোমবার বিকালে মাঝ বরাবর ধসে গেছে। এতে সড়কে চলাচল বন্ধ হয়ে কয়েকশ যানবাহন আটকে গেছে। গতকাল সকাল থেকে সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তরের কর্মীরা এসে কালভার্টটি সংস্কার করা শুরু করেন। শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়ক নির্মাণের সময় এ কালভার্টটি নতুন করে নির্মাণ করা হলে এ পরিস্থিতি তৈরি হতো না।

এ বিষয়ে সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী দিদারুল আলম তরফদার জানান, শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়ক নির্মাণ প্রকল্পে জারিয়া আনসার ক্যাম্পের সামনে অবস্থিত বড় কালভার্টটি অন্তর্ভুক্ত ছিল না। এ কারণে নতুন করে নির্মাণ করা হয়নি। গত সোমবার বিকালে কালভার্টটি অতিরিক্ত লোডের কারণে ধসে যায়। গতকাল সকাল থেকে সওজ এটি মেরামতে কাজ শুরু করেছে। আপাতত বেইলি ব্রিজ বসিয়ে শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়কে যান চলাচল শুরু করা হবে। পরে সুবিধাজনক সময়ে কালভার্টটি নতুন করে নির্মাণ করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :