পেঁয়াজ ৪০ টাকার বেশি বিক্রি করলে ফোন দেবেন

প্রকাশিত: ৯:০৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০২০

সিলেটে প্রশাসনের নজরদারি আর ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের মুখে পেঁয়াজের দাম কমে গেছে। ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে কেজিতে পেঁয়াজের দাম কমল ২০ টাকা। শনিবার (২১ মার্চ) সন্ধ্যা পর্যন্ত দেশি পেঁয়াজ পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকায়। আর এলসির পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকায়।

শনিবার সিলেটের বড় পাইকারি বাজার কালিঘাটে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দেশি পেঁয়াজ সকালে কেজি ৪০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। বিকেলে থেকে এ পেঁয়াজ ৩৫ টাকায় কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।

কালিঘাটের মেসার্স রসিদ আলী অ্যান্ড কোংয়ের মালিক মো. আব্দুল বাছিত বলেন, গত বৃহস্পতিবারও দেশি পেঁয়াজ পাইকারিতে ৬০ থেকে ৬৫ টাকায় কেজি বিক্রি হয়েছে। আর আমদানিকৃত পেঁয়াজ কেজিপ্রতি ৭০ টাকায় বিক্রি হয়। ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে কেজিতে দেশি পেঁয়াজের দাম প্রায় ২০ টাকা এবং বিদেশি পেঁয়াজ প্রায় ১৫ টাকা কমেছে। সিলেটে পেঁয়াজের কোনো সংকট নেই। প্রতিদিনই প্রচুর পেঁয়াজ আসছে বাজারে। তাই দাম বৃদ্ধির কারণ নেই।

এদিকে, সিলেটে খুচরা বাজারে শুক্রবার দেশি পেঁয়াজ ৬০ থেকে ৬৫ টাকায় এবং আমদানিকৃত পেঁয়াজ ৮০ টাকায় বিক্রি হয়। শনিবার দেশি পেঁয়াজ ৫০ টাকায় এবং আমদানিকৃত পেঁয়াজ ৬৫ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে।

প্রসঙ্গত, অসাধু ব্যবসায়ীরা করোনাভাইরাসের অজুহাতে পেঁয়াজের দাম হঠাৎ বাড়িয়ে দেন। তবে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কঠোর নজরদারি এবং ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে দাম কমতে শুরু করে।

সিলেটের প্রতিটি উপজেলায় ও নগরে একযোগে অভিযান শুরু করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা। অনেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা নিজের মোবাইল নম্বর দিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে লিখেছেন, ‘পেঁয়াজ ৪০ টাকার বেশি বিক্রি করলে ফোন দেবেন।’