মহাসড়ক যেন মরণ ফাঁদ!

প্রদীপ বাগচী
প্রকাশিত : মঙ্গলবার ১৬ জুলাই, ২০১৯ /

ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়ক, একটি গুরুত্বপূর্ণ ও ব্যস্ততম রাস্তা। এই রাস্তা দিয়েই প্রতিদিন ময়মনসিংহ থেকে সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের সাথে যোগাযোগ। আর এই মহাসড়কটিকে সম্বল করে- ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, শেরপুর, জামালপুর, কিশোরগঞ্জ জেলার সর্বস্তরের মানুষ তাদের জীবন ও জীবিকার তাগিদে প্রতিদিন প্রতিরাত তাদের আন্তঃযোগাযোগ সহ চট্টগ্রাম ও সিলেট দুটি বিভাগের সাথে সম্পর্ক বজায় রেখে চলে। চাকুরী, ব্যবসা, বাণিজ্য, শিল্প-কারখানা, পর্যটন সহ অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা বজায় রেখে চলতে গিয়ে এই মহাসড়কে প্রতিদিনই চলাচল করে হাজার হাজার গণপরিবহন এবং লক্ষাধিক মানুষ।

অথচ, পুনঃসংস্কারের কিছুদিন যেতে না যেতেই- এই মহাসড়কটিতে কলতাপাড়া বাজারের অদূরে অবস্থিত ডেল্টা স্পিনিং মিলের সামনের এই স্থানের মতোন জায়গায় জায়গায় সৃষ্টি হয়েছে গভীর গর্ত। আর, হঠাৎ দৃষ্টিগোচর হওয়া এই সকল গর্তের সামনে পড়ে, হতবিহ্বল হয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দ্রুতই প্রাণহানিকর দূর্ঘটনায় পতিত হয়, গণপরিবহন এর ড্রাইভার ও সাধারণ যাত্রীরা। আবার, অনেকে প্রাণে বেঁচে গেলেও, সারাজীবনের জন্য পঙ্গুত্ব বরণ করে নিতে হয়।

মহাসড়কে ক্রমবর্ধমান দূর্ঘটনা রোধে সরকার যেখানে দৃঢ় পদক্ষেপ গ্রহণ ও বাস্তবায়নে তৎপর, সেখানে সংস্কারের অল্প কিছুদিনের ব্যবধানে সৃষ্ট এসকল গর্ত নামের মরণফাঁদ এর বিষয়ে নির্বাক সড়ক বিভাগ। সড়ক বিভাগের কর্মকর্তাদের গাফিলতি আর উদাসীনতায় পার পেয়ে যায় জনগণের জীবন নিয়ে ছিনিমিনিখেলা সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান।

তবে কি জনগণের জীবনের চেয়ে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের দায়সারা কাজের মূল্য বেশী???????

তবে কি জনগণের জানমালের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত এর চেয়ে সড়ক বিভাগের অসাধু ও উদাসীন কর্মকর্তাদের আয়েশী জীবনের মূল্য বেশী???????

“তবে কি ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়ক আজ একটি মরণফাঁদের নাম?”

এবিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট মহল সহ যথাযথ কর্তৃপক্ষ এর আশু পদক্ষেপ গ্রহণের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

লেখক- প্রদীপ বাগচী,গৌরীপুর,ময়মনসিংহ।

আপনার মতামত লিখুন :