মোতালিবের বাগানে দুর্লভ ‘মে ফ্লাওয়ার

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত : রবিবার ৩১ মে, ২০২০ /

শৌখিন বাগানপ্রেমী মোতালিব বিন আয়েত। শখের বসে বাগানে রোপণ করেছিলেন মে ফ্লাওয়ার গাছ। গত কয়েক বছর নিয়ম করে মে মাসের প্রথম সপ্তাহে বাগানে ফুটেছে দুর্লভ মে ফ্লাওয়ার ফুল। কিন্তু এ বছর ঘটে ব্যতিক্রম ঘটনা। মে মাস শেষের পথে, অথচ বাগানে দেখা নেই মে ফ্লাওয়ারের। আশাহত হয়ে যান বাগানপ্রেমী মোতালিব।

কিন্তু মে ফ্লাওয়ার তাকে আশাহত করে রাখেনি। মে মাসের ৩১ তারিখ বাগানে নয়নাভিরাম সৌন্দর্য নিয়ে ফুটে উঠে পূর্ণাঙ্গ মে ফ্লাওয়ার।

মোতালিবের বাড়ি ময়মনসিংহের গৌরীপুর পৌর শহরের গো-হাটা এলাকায়। তার বাড়ির বাগানে রয়েছে নানা প্রজাতির ফুলের সমাহার।

রোববার (৩১ মে) এই বাগান প্রেমীর বাড়িতে গিয়ে মে ফ্লাওয়ার ফুলটি দেখা যায়। ঘ্রাণহীন হলেও মে ফ্লাওয়ারের ফুলের সৌন্দর্য যে কাউকে মুগ্ধ করবে।

মূলত মে মাসে ফুটে বলেই ফুলটির নামকরণ হয়েছে মে ফ্লাওয়ার। মে মাসের একেবারে প্রথম দিক থেকেই মে ফ্লাওয়ার প্রকৃতিকে তার অস্তিত্ব ও সৌন্দর্য জানান দেয়।

অঞ্চলভেদে মে ফ্লাওয়ার- বল লিলি, গ্লোব লিলি, আফ্রিকান ব্লাড লিলি ইত্যাদি নামে পরিচিতি।

মে ফ্লাওয়ারের আদি নিবাস আফ্রিকা হলেও আমাদের আবহাওয়ায় এই গাছ বেশ উপযোগী। তাই পুষ্পপ্রেমীরা বাগানে, বারান্দার টবে, ছাদ বাগানে স্থান দিয়ে এদের সৌন্দর্য উপভোগ করে।
বাগান মালিক মোতালিব ও তার পরিবারের সদস্যরা।

মে ফ্লাওয়ার কন্দজাতীয় ফুল গাছ। গাছের ডাঁটা থেকে ফুল হয়। ফুটন্ত ফুলে উজ্জ্বল লাল রঙের মাঝে হলুদ-সাদা আভার মিশ্রণ থাকে।

প্রথম দেখায় ফুটন্ত মে ফ্লাওয়ার দেখে মনে হয় কাঁটায় ঘেরা। আদতে তা নয়। ফুলের পাপড়িতে স্পর্শ করলে নরম কোমল অনুভূতি হয়। আঙুলের ডগায় উঠে আসে ছিটে-ফোঁটা হলুদ রঙ।

মে ফ্লাওয়ার একমাস স্থায়ী হয়। ফুল ঝরে পড়ার পর পাতার সৌন্দর্য আরও কিছুদিন উপভোগ করা যায়। গাছের কন্দমূল থেকে অঙ্গজ প্রজননের মাধ্যমে মে ফ্লাওয়ারের বংশবিস্তার ঘটে।

বাগান মালিক মোতালিব বলেন, ‘মে মাসের প্রথম দিকেই মে ফ্লাওয়ার ফুটে। এবার মে মাস শেষ হতে চললেও বাগানে ফুলটির দেখা না পাওয়ায় আশাহত ছিলাম। কিন্তু আমাকে অবাক করে দিয়ে মে মাসের শেষ মুহূর্তে বাগানে মে ফ্লাওয়ার ফুটেছে।’

আপনার মতামত লিখুন :