ময়মনসিংহ-মুক্তাগাছা রুটে বিআরটিসি বাস সার্ভিস চালু

জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : মঙ্গলবার ২৫ জুন, ২০১৯ /

ময়মনসিংহ-মুক্তাগাছা রুটে বিআরটিসি বাস সার্ভিস চালু হয়েছে। মুক্তাগাছার ভাবকির মোড় থেকে প্রতিদিন ময়মনসিংহ নগরীর টাউন হল মোড়, কাচারি, পাটগুদাম ব্রিজ মোড়, চরপাড়া হয়ে মাসকান্দা পর্যন্ত বাস চলবে। ২০ কিলোমিটার এ পথের জন্য যাত্রীদের ভাড়া গুনতে হবে ২০ টাকা।

তিনটি বাস দিয়ে এ সার্ভিসের উদ্বোধন করা হলেও মূলত এ রুটে চলচল করবে ১৬টি বাস। এটিই হবে ময়মনসিংহ ও মুক্তাগাছাবাসীর জন্য একমাত্র গণপরিবহন।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মুক্তাগাছার ভাবকির মোড়ে এই বাস সার্ভিসের উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কাজী খলিদ বাবু।

জানা গেছে, ময়মনসিংহ শহর থেকে মুক্তাগাছা উপজেলার দূরত্ব ২০ কিলোমিটার। কিন্তু এ সড়কটি বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। যদিও সড়কটি প্রশস্তকরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তবে এ সড়কে দূরপাল্লার বাস ছাড়া কোনো লোকাল বাস চলাচল করে না। ফলে স্থানীয় জনসাধারণকে বাধ্য হয়েই সিএনজি চালিত অটোরিকশার উপর নির্ভর করতে হয়। কিন্তু সরু সড়ক হওয়ায় প্রতিনিয়ত আতঙ্ক নিয়ে যাত্রীদের চলাচল করতে হয়। এ রুটে আজ বিআরটিসি সার্ভিস চালু হল।

উদ্বোধনী যাত্রাকালে মাহমুদ হাসান নামে এক যাত্রী বলেন, ‘আগে সিএনজি দিয়ে ময়মনসিংহ শহরের টাউন হল পর্যন্ত যেতে ৩০ টাকা গুনতে হতো। এখন মাত্র ২০ টাকা দিয়েই এর চেয়ে বেশি পথ যেতে পারব। এছাড়াও আমার গন্তব্য যেখানে সেখানেও নামতে পারবো। বিআরটিসি সার্ভিস চালু হওয়ায় আমরা খুবই খুশি।’

রবিন নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘এখন থেকে সিএনজির জন্য আমাদের অপেক্ষা করতে হবে না। স্বল্প সময় আর স্বল্প খরচেই আমরা যাতায়াত করতে পারব।’

তবে এ বাস সার্ভিসে বিনা পয়সায় যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কাজী খলিদ বাবু। যাত্রীরা যেন টিকিট কেটে ওই বাসে যাতায়াত করে সে ব্যাপারে উৎসাহিতও করেছেন তিনি। এমনকি মন্ত্রী নিজে টিকিট কেটে সাধারণ যাত্রীদের সঙ্গে বাস সার্ভিস যাত্রার শরিক হয়েছেন। সাধারণ যাত্রীর মতোই তিনি নিজ এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে নিয়ে ময়মনসিংহ এসেছেন, আবার মুক্তাগাছাও ফিরে গেছেন।

বাস সার্ভিসটি উদ্বোধন করতে গিয়ে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কাজী খলিদ বাবু বলেন, ‘আমি ছাত্র, আমি সরকারি চাকরিজীবী, যুবলীগ করি, ছাত্রলীগ করি এসব বলে ভাড়া অর্ধেক দেবেন, এই অপকর্ম করা যাবে না।’ প্রত্যেকের পকেটে হাত দিলে দেখবেন ২০ হাজার টাকা দামের মোবাইল আছে। তাহলে এখানে বিশ টাকা দিতে সমস্যা কী? প্রশ্ন রাখেন প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আমরা যেন এই বাসটির রক্ষণাবেক্ষণ করি। এই সার্ভিসটি টিকিয়ে রাখার দায়িত্ব আপনার-আমার সকলের।’

আপনার মতামত লিখুন :