ময়মন‌সিং‌হে গারো তরুনী ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে হাসপাতালের মালিক গ্রেফতার

সাজ্জাতুল ইসলাম সাজ্জাত
প্রকাশিত : সোমবার ১৯ আগস্ট, ২০১৯ /

চাকুরির প্রলোভন দেখিয়ে অপারেশন থিয়েটারে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর এক গারো তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে ময়মনসিংহের কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা হয়েছে।

এ ঘটনায় ধর্ষণের চেষ্টার মূল হোতা বেসরকারি পদ্মা জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ম্যানেজার সোহেল রানা আলমকে পালিয়ে যেতে সহায়তা করায় প্রতিষ্ঠানের মালিক শেখ মুজিবুর রহমান বাবুলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

নির্যাতিতা ওই গারো তরুণী রোববার কোতোয়ালী মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। তিনি এখন ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা মিলেছে। ২০০৯ সালে ভাড়া বাড়িতে ওই হাসপাতালটি চালুর পর থেকেই ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন অভিযুক্ত সোহেল রানা আলম। স্থানীয়রা ম্যানেজারের বিরুদ্ধে একই ধরণের আরো অভিযোগ রয়েছে বলেও পুলিশকে জানিয়েছেন।

তিনি আরো জানায়, রোববার (১৮ আগস্ট) বিকেলে নগরীর ব্রাহ্মপল্লী এলাকায় পদ্মা জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কর্তৃপক্ষ চাকুরি দেয়ার কথা বলে পাঁচ গারো তরুণীকে ডেকে নিয়ে যায়। তাদের সাথে কথা বলার এক পর্যায়ে এক তরুণীকেওটির (অপারেশন থিয়েটার) রুম দেখানোর কথা বলে দোতলায় একটি কক্ষে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে ম্যানেজার সোহেল রানা আলম। পরে সহপাঠীরা তাকে উদ্ধার করে।
বিষয়টি জানাজানি হলে গারো সম্প্রদায়ের লোকজন ওই হাসপাতাল ঘেরাও এবং দোষীদের গ্রেফতারের দাবি করে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলার ভূইয়াপাড়া গ্রামের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী (গারো) নিপিন লের মেয়ে জেসিকা রেমা লেখাপড়া করার জন্য নগরীর ভাটিকাশর এলাকায় বসবাস করতেন। তিনি ময়মনসিংহ মহিলা ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করে নার্সিং পেশায় প্রশিক্ষণ নেন। রোববার বিকেলে স্ব-গোত্রীয় পাঁচ বান্ধবী পদ্মা জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চাকুরির জন্য যায়।
হাসপাতালের ম্যানেজার ম্যানেজার সোহেল রানা আলম চাকুরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে তার শরীরে হাত দেয়। এক পর্যায়ে তার পরণের জামা খুলে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করে। তার চিৎকার শুনে বান্ধবীরা এসে তাকে উদ্ধার করে।

খবর পেয়ে হাসপাতালের মালিক শেখ মুজিবুর রহমান বাবুল এসে মীমাংসার আশ্বাস দিয়ে অভিযুক্ত ম্যানেজার সোহেল রানা আলমকে ওটির জানালা ভেঙে পালানোর সুযোগ করে দেয়।

এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন গারো সম্প্রদায়ের নেতারা।
ট্র্যাইবাল ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অরন্য ই চিরান বলেন, অভিযুক্তের বিরুদ্ধের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি।

আপনার মতামত লিখুন :