শিথিল হচ্ছে কঠোর বিধিনিষেধ , চলবে গণপরিবহন, খোলা থাকবে শপিংমল ও দোকানপাট

বসবে কোরবানির হাট

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশিত : সোমবার ১২ জুলাই, ২০২১ /

করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে চলমান কঠোর বিধিনিষেধ আগামী বৃহস্পতিবার থেকে শিথিল করা হচ্ছে। এ সময়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে গণপরিবহন এবং খোলা থাকবে শপিংমল ও দোকানপাট, বসবে কোরবানির হাট। আজ সোমবার বিকেলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

জানা গেছে, ঈদুল আজহা উপলক্ষে আগামী ১৫ জুলাই থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত  স্বাস্থ্যবিধি মেনে এক আসন ফাঁকা রেখে চলবে সব গণপরিবহন। খুলে দেওয়া হবে দোকানপাট, শপিংমল। এ সময় সরকারি অফিস ভার্চুয়ালি খোলা থাকলেও বন্ধ থাকবে বেসরকারি অফিস।

১৫ জুলাই ভোর ৬টা থেকে ২৩ জুলাই ভোর ৬টা পর্যন্ত বিধিনিষেধ শিথিলের আদেশ কার্যকর থাকবে। ঈদের পর আবারও দুই সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করা হতে পারে।

এর আগে করোনার ভয়াবহ সংক্রমণ রোধে গত ১ জুলাই থেকে কঠোর বিধিনিষেধ চলমান রয়েছে। প্রথম ধাপে ৭ জুলাই পর্যন্ত বিধিনিষেধ ঘোষণা করা হয়। পরে তা বাড়িয়ে ১৪ জুলাই করা হয়।

গতকাল রোববার জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘যেহেতু ঈদ এবং কোরবানির হাট আছে, এ দুটিকে কীভাবে করলে সংক্রমণটি নিয়ন্ত্রণ করতে পারব, সেটিই আমাদের মূল লক্ষ্য। হাটগুলোকে কত সুনিয়ন্ত্রিতভাবে করতে পারি সেটা নিয়ে চিন্তা করা হচ্ছে। হাটগুলো যাতে নিরাপদ খোলা জায়গায়, যেখানে তিনটি গেট থাকতে পারে। একটি দিয়ে ক্রেতারা ঢুকবেন, তারা পশু কিনে নিয়ে আসবেন। আরেকটি দিয়ে পশু ঢোকানো হবে। হাটে নির্দিষ্ট সংখ্যক ক্রেতা ঢুকবে ও  স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে। সংক্রমণ ও মৃত্যু মাথায় রেখেই হাটে আসতে হবে।’

হাটে অতিরিক্ত মানুষ যাতে না ঢোকে তা নিয়ন্ত্রণ করা ও হাট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা রাখার কথা বলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন। তিনি বলেন, ‘গতবার যেহেতু ২৫ শতাংশ সাকসেসফুল করেছি ডিজিটাল হাটকে… অনলাইনের যে হাটগুলো, সেগুলো যাতে আরও জনপ্রিয় করা যায়, সেটিতে এবার আরও জোর দিচ্ছি।’

আপনার মতামত লিখুন :