শুভ্র হত্যাকান্ডের দু’দিনেও মামলা হয়নি, সুষ্ঠ বিচারের দাবিতে স্বেচ্ছাসেবকলীগের মানববন্ধন

মশিউর রহমান কাউসার
প্রকাশিত : সোমবার ১৯ অক্টোবর, ২০২০ /

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক ও বিআরডিবির চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান শুভ্র (৩২) হত্যাকান্ডের ঘটনায় দু’দিনে থানায় কোন মামলা দায়ের করা হয়নি। এদিকে এ হত্যাকান্ডের সুষ্ঠ বিচারের দাবিতে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের উদ্যোগে সোমবার (১৯ অক্টোবর) মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উল্লেখ্য শনিবার (১৭ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১০টার দিকে গৌরীপুর গৌরীপুর পৌর শহরে পানমহাল এলাকায় শুভ্রকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে রবিবার ভোরে উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক (একাংশ) ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ ও তার তিন সহযোগী জাহাঙ্গীর, মুজিবর ও রাসেলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
এ বিষয়ে নিশ্চিত করে গৌরীপুর থানার ওসি বোরহান উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় এখনো পর্যন্ত মামলা দায়ের হয়নি। তবে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে তিনি জানান।

নিহত শুভ্র’র বাবা সিদ্দিকুর রহমান বাবুল সাংবাদিকদের জানান, তার ছেলে আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। শুভ্র’র জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশকারী হাইব্রিড কতিপয় নেতাদের মদদে বিএনপির ক্যাডার রিয়াদুজ্জামান গংরা এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে।

এদিকে শুভ্র হত্যাকান্ডের পরদিন রবিবার প্রধান অভিযুক্ত বিএনপি নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াদের বাসভবনে হামলা চালিয়ে ভাংচুর শেষে অগ্নিসংযোগ করে বিক্ষুব্দরা। এছাড়া অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর করা হয় পৌর মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলামের বাসভবন, স’মিল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। অগুনে পুড়িয়ে দেয়া মেয়রের ব্যক্তিগত পাজারো গাড়ি। অপরদিকে বালুয়াপাড়া এলাকায় রিয়াদের শ্বশুড় মৃত নুরুল ইসলামের বাসায় অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর করে বিক্ষুব্দরা।

সোমবার মধ্যবাজার কৃষ্ণচূড়া চত্বরে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ আয়োজিত মানব বন্ধন ও সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সোহেল রানা। এ হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা ও সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানিয়ে এতে বক্তব্য দেন উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হেলাল উদ্দিন আহাম্মদ, দপ্তর সম্পাদক অধ্যক্ষ শফিকুল ইসলাম মিন্টু, পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামসুল ইসলাম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক আহবায়ক ও শুভ্রর চাচা আশিকুর রহমান বাচ্চু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মুন্নাফ, ইউপি চেয়ারম্যান ও গৌরীপুর সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি মো. হাবিবুল্লাহ হাবিব, গৌরীপুর পৌরসভার কাউন্সিলার আব্দুল কাদির, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সানাউল হক হীরা, মিজানুর রহমান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এসএস জিল্লুর রহমান, মেহরাব আরেফিন বাধন, উপজেলা শ্রমিকলীগের যুগ্ম আহবায়ক বিল্লাল হোসেন, সরকারি কলেজ ছাত্র লীগের সহ সভাপতি ওয়াশিকুল ইসলাম রবিন, ছাত্রলীগ নেতা আশরাফুল ইসলাম বাবু, পাভেল রহমান প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী তদন্ত করে হত্যাকান্ডের নেপথ্যে জড়িতদের বের করে আইনের আওতায় এনে হত্যাকান্ডের সবোর্চ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায় আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

আপনার মতামত লিখুন :