শুভ্র হত্যাকান্ড: গৌরীপুরে পৌর মেয়র ও ইউপি চেয়াম্যানসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা

মশিউর রহমান কাউসার
প্রকাশিত : মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর, ২০২০ /

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মাসুদুর রহমান শুভ্র (৩২) হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে গৌরীপুর পৌর মেয়র ও পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি সৈয়দ রফিকুল ইসলাম (৫৫) এবং উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ (৩৮) সহ স্থানীয় ১৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। সোমবার রাত ১০ টার দিকে নিহত শুভ্র’র ছোট ভাই আবিদুর রহমান প্রান্ত (২৩) বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় এ হত্যা মামলা দায়ের করেন। এতে অজ্ঞাত আরও ৮ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এ বিষয়টি নিশ্চিত করে গৌরীপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ বোরহান উদ্দিন জানান সন্দেহভাজন হিসেবে আটক মামলার প্রধান আসামি ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ এবং তার ৩ সহযোগী পশ্চিম কাউরাট গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম (৩২), রাসেল (৩২) ও মজিবুর (৩০) কে এ হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলখানায় প্রেরণ করা হয়েছে।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন রিয়াদের ছোট ভাই কার্জন (৩২), পৌর মেয়রের ছোট ভাই সৈয়দ তৌফিকুল ইসলাম (৪৮) ও মাজাহারুল ইসলাম জুয়েল (৩৮), গৌরীপুর পৌরসভার উত্তর বাজার এলাকার সাকিব আহম্মেদ রেজা (৩৩), পশ্চিম ভালুকার রিফাত (৩২), উপজেলার লামাপাড়া গ্রামের মোজাম্মেল (৩০), নন্দুরা গ্রামের সুমন (৩০), পশ্চিম কাউরাট গ্রামের খাইরুল (৩০), হানিফ (৩০)।

ওসি বোরহান উদ্দিন আরও বলেন, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ শুভ্র হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন।

উল্লেখ্য শনিবার (১৭ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১০টার দিকে গৌরীপুর পৌর শহরে পানমহাল এলাকায় শুভ্রকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে রবিবার ভোরে উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক (একাংশ) ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ ও তার তিন সহযোগী জাহাঙ্গীর, মুজিবর ও রাসেলকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলার এজাহারে প্রকাশ, মাসুদুর রহমান শুভ্র আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। এলক্ষ্যে এলাকায় উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে অংশগ্রহন ও সমাজসেবার মাধ্যমে শুভ্র অল্প সময়ে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেছিলেন। এ জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ সৈয়দ রফিকুল ইসলামের হুকুমে পরিকল্পিতভাবে শুভ্রকে হত্যা করে বিএনপির ক্যাডার রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ গংরা।

এদিকে শুভ্র হত্যাকান্ডের পরদিন রবিবার প্রধান অভিযুক্ত বিএনপি নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াদের বাসভবনে হামলা চালিয়ে ভাংচুর শেষে অগ্নিসংযোগ করে বিক্ষুব্দরা। এছাড়া অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর করা হয় পৌর মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলামের বাসভবন, স’মিল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। অগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয় মেয়রের ব্যক্তিগত পাজারো গাড়ি। অপরদিকে বালুয়াপাড়া এলাকায় রিয়াদের শশুড় মৃত নুরুল ইসলামের বাসায় অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর করে বিক্ষুব্দরা।

আপনার মতামত লিখুন :