শেরপুরে গভীর রাতে বাসে অভিযান চালালেন ইউএনও

জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : সোমবার ১০ জুন, ২০১৯ /

শেরপুরে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে অতিরিক্ত বাস ভাড়া ফেরত পেলেন ঈদ পরবর্তী কর্মস্থলে ফেরা যাত্রীরা। সোমবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে শহরের রঘুনাথ বাজার এলাকায় শেরপুর থেকে ঢাকাগামী চেম্বার-২ কাউন্টারের নৈশ পরিবহনে এমন ঘটনা ঘটে।

বিআরটিএ ও পরিবহন সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, জেলা বাস-কোচ মালিক-শ্রমিক সমিতির সঙ্গে পরামর্শক্রমে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দূরপাল্লার সড়কে বাস-কোচগুলোতে এবার ঈদ যাত্রী পরিবহনে শেরপুর-ঢাকা রুটে ৩০০ টাকার স্থলে ভাড়া নির্ধারণ করা হয় ৪৫০ টাকা। কিন্তু যাত্রীর চাপ বেড়ে যাওয়ায় সুযোগ বুঝে শেরপুর টু ঢাকা রুটের কোনো কোনো বাস ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা পর্যন্ত আদায় করতে থাকে।

এমন অভিযোগের ভিত্তিতে রোববার দিবাগত মধ্যরাতে জেলা বিআরটিএ কর্মকর্তাকে সঙ্গে নিয়ে শেরপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফিরোজ আল মামুন শহরের রঘুনাথ বাজার থেকে ছেড়ে যাওয়া নৈশ কোচে অভিযান চালান। এ সময় যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে বাসের নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে বাড়তি ভাড়া নেয়ার সত্যতা পান তিনি। পরে তিনি বাস কাউন্টারে কর্মরতদের যাত্রীদের কাছ থেকে নেয়া অতিরিক্ত টাকা ফেরত দিতে বাধ্য করেন।

যাত্রীরা জানান, তাদের কাছ থেকে বাড়তি ১৫০ থেকে ২৫০ টাকা ভাড়া নেয়া হয়েছে। ইউএনও কাউন্টারের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন এবং গাড়িতে উঠে টিকিট চেক করে বাড়তি ভাড়া নেয়ার সত্যতা পান। পরে কাউন্টারের কর্মকর্তাদের বাড়তি টাকা ফেরত দেয়ার জন্য বলেন।

শেরপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফিরোজ আল মামুন বলেন, নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে বাড়তি ভাড়া নেয়া হচ্ছে এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমরা বিভিন্ন কাউন্টারে অভিযান চালাই। অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় বাড়তি টাকা আমরা যাত্রীদের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করি। এ ব্যাপারে প্রশাসন তৎপর রয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

আপনার মতামত লিখুন :