সাম্যের ইতিহাস

এমদাদুল হক মিল্লাত
প্রকাশিত : সোমবার ৪ অক্টোবর, ২০২১ /

পাথরে পাথর ঘষে,
মানুষ, আগুন জ্বালাতো
সে মানুষ বসতি গড়ে জনারন্যে
নিজের জন্যে’
হাত বাড়ায় একে অন্যে।

হাত থেকে বাড়ায় হাতিয়ার,
‘সভ্যতা গড়ার।
ভব্যতা শ্রম মেধা তাকে,
শেখায় সৃষ্টি সৃজন
শিখে পড়ে গড়ে তার,
ভুবন মনন পবন।

ঝড়, তুফান, বন্যা, ভুমিকম্প, সুনামি
তছনছ হওয়া জীবন ধ্বংসের বিরুদ্ধে,
হয়ে উঠে সে সংগ্রামী।

গোষ্ঠীবদ্ধ জীবনে, আসে বিভাজন
তাতে আসে, কষ্ট আনন্দ বিরহ-
আসে নিরঞ্জন,
নিত্যানন্দ ভেবে নেয়,
ভাবে এই বুঝি তার সমাপ্তি!
এরপর আর তার কাজ কি?
কিন্তু মানব জীবন থামে না- থামে না তার সৃষ্টি
উল্লাসে সোৎসাহে সাধনা শ্রমে গড়ে কৃষ্টি’।
গড়ে সম্পদ,
বাড়ে লুন্ঠন,
আসে মালিকানা।
বিতরণ, বন্টন, বৈষম্যে,
বাড়ে বিড়ম্বনা।

বিভাজন বাড়ে – বাড়ে দম্ভ হিংসা – করে পরিহাস।
কিন্তু সংগ্রামী যে মানুষ!
তাতে দমবে না সে কখনো
ভাঙবে বিভাজন হারাবে দম্ভ-
কুৎসিত লুটপাট।

কেননা সে সক্রেটিস- সে স্পার্টাকাস,
সে জানে ভাঙতে শোষণ,
গড়তে মানবিক সাম্যের ইতিহাস।
———————–
কবি : সভাপতি
বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি
ময়মনসিংহ জেলা কমিটি।

আপনার মতামত লিখুন :