সুন্দরী গৃহকর্ত্রীর অন্তরঙ্গ মুহূর্ত দেখে ফেলায় লাশ হলো গৃহকর্মী

জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : শনিবার ২৪ অক্টোবর, ২০২০ /

পরকীয়া দেখে ফেলায় গৃহকর্মী ১০ বছরের সাদিয়ার ওপর দিনের পর দিন অমানুষিক নির্যাতন চালান ঝুমু। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রায় এক মাস চিকিৎসাধীন থাকার পর অবশেষে শুক্রবার সন্ধ্যায় মারা যায় শিশুটি। অভিযুক্ত ঝুমু শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার এক রাজনৈতিক দলের নেতা আহসান হাবীব শাকিলের স্ত্রী।

নিহত সাদিয়া শ্রীবরদী পৌরশহরের মুন্সিপাড়া এলাকার হতদরিদ্র ট্রলিচালক সাইফুল ইসলামের মেয়ে। মেয়ের হত্যাকারীর ফাঁসি দাবি করেন বাবা-মা।

স্বজনদের অভিযোগ, আহসান হাবিব শাকিলের স্ত্রী ঝুমুর পরকীয়া ছিল। বাসায় আসা-যাওয়া ছিল ওই প্রেমিকের। হঠাৎ একদিন তাদের অন্তরঙ্গ মুহূর্ত দেখে ফেলে গৃহকর্মী শিশু সাদিয়া। এরপরই সাদিয়ার ওপর নেমে আসে শাকিলের স্ত্রী ঝুমুরের বর্বর নির্যাতন।

এক প্রতিবেশী ৯৯৯-এ কল করলে ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে শিশুটিকে উদ্ধার করে পুলিশ। গুরুতর আহত অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। শুক্রবার বিকেলে সেখানেই সে মারা যায়।

নিহতের বাবা বলেন, ওই নারীর পরকীয়া ছিল। আমার মেয়ে তাদের খারাপ অবস্থায় দেখে ফেলায় পেটে লাথি মারাসহ বিভিন্ন ধরনের নির্যাতন করেছে। অবশেষে মেয়েটি মারাই গেল। এ হত্যার বিচার চাই।

অ্যাডিশনাল এসপি (শেরপুর সদর সার্কেল) মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, ২৬ সেপ্টেম্বর শিশুটির বাবার করা মামলায় ঝুমুরকে গ্রেফতার করা হয়। এ ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন :