সেই বৃদ্ধা মায়ের পা ধরে ক্ষমা চেয়ে ঘরে নিলেন সন্তানরা

জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : বুধবার ২৯ মে, ২০১৯ /

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে হাজেরা বেগম (৮০) নামে এক বৃদ্ধা মাকে মারধর করে খোলা আকাশের নীচে ফেলে রেখে গিয়েছিল পাষণ্ড ছেলেরা।

অবশেষে পুলিশ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের হস্তক্ষেপে গফরগাঁওয়ের সেই বৃদ্ধা মায়ের পায়ে ধরে ক্ষমা চেয়ে ঘরে নিয়েছেন তিন সন্তান। আর কোনোদিন মায়ের সাথে অন্যায় আচরণ করবে না মর্মে লিখিত দিয়ে রাতেই বাসায় নিয়ে গেছেন তারা।

সোমবার (২৭ মে) রাত সাড়ে আটটার দিকে গফরগাঁও থানায় পুলিশ, জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্যদের এক বৈঠকে নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে তিন সন্তান নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন তারা। পরে সর্বসম্মতিক্রমে পুলিশ আটককৃত ছেলে ও নাতিকে ছেড়ে দেয়।

মাফ চেয়ে ভরণপোষণের দায়িত্ব নেওয়ায় পর গফরগাঁও থানার পক্ষ থেকে বৃদ্ধা মা হাজেরাকে ঈদ উপহার নতুন শাড়ী, সেমাই, চিনি, সাবান, নারকেল তেলসহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী প্রদান করা হয়।

এসময় গফরগাঁও সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলী হায়দার চৌধুরী, গফরগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবদুল আহাদ খান এবং গফরগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সামসুল আলমসহ সাংবাদিক ও স্থানীয় গণ্যমান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, উপজেলার গফরগাঁও ইউনিয়নের উথুরী গ্রামের মৃত রেসমত আলীর স্ত্রী হাজেরা বেগমের ৩ ছেলে আব্দুস সাত্তার (৫০), সোহরাব উদ্দিন (৪৫) ও সাইফুল ইসলাম (৪০)। প্রায় ১৬ বছর পূর্বে স্বামী মারা যাওয়ার সময় হাজেরা বেগমের নামে ১২ কাঠা জমি লিখে দেয়।

স্বামীর মৃত্যুর পর ছেলেরা হাজেরা বেগমকে কিছু দিন ভরণ-পোষণ দিত। এক পর্যায়ে ছোট ছেলে সাইফুল ইসলাম গোপনে জোর করে মা হাজেরা বেগমের কাছ থেকে ১২ কাঠা জমি নিজের নামে লিখে নেয়।

এ খবর পাওয়ার পর অন্য ছেলেরা মায়ের ভরণ-পোষণ ও খোঁজ খবর নেয়া বন্ধ করে দেয়। এ অবস্থায় হাজেরা বেগম ছোট ছেলে সাইফুলের সংসারে খাওয়া দাওয়া করতেন। কিন্তু সাইফুলের সংসারে দিন দিন মা হাজেরা বেগমের আদর কমতে থাকে। এমন কি সাইফুল মাকে ভাত কাপড়েও কষ্ট দিতে থাকে। তিন বেলার মধ্যে কখনো এক বেলা খাবার দিত, কখনো এক বেলাও খাবার দিত না। উল্টো ছেলে সাইফুল মাকে মারধর অত্যাচার করতো।

এ অবস্থা স্থানীয়ভাবে একাধিকবার বিচার সালিশও হয়েছে। কিন্তু জমি লিখে নেয়ায় বিচার সালিশে ছোট ছেলে সাইফুলকেই মা হাজেরা বেগমের ভরণ-পোষণের দায়িত্ব দেয়া হয়। সাইফুল কোন বিচার সালিশ না মেনে বৃহস্পতিবার সকালে মা হাজেরা বেগমকে মারধর করে বাড়ির সামনে রাস্তার পাশে খোলা আকাশের নীচে ফেলে রাখে। টানা ৩ দিন বৃদ্ধা হাজেরা বেগম না খেয়ে রাস্তার পাশে খোলা আকাশের নিচে পড়েছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :