ময়মনসিংহবৃহস্পতিবার , ৩০ নভেম্বর ২০২৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নারী জাগরণে অনন্য ইউএনও জেসমিন

রতন ভৌমিক
নভেম্বর ৩০, ২০২৩ ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

উন্নয়নের বারতা-নারী পুরুষ সমতা। সমাজে নারী-পুরুষের সমান্তরাল কর্মপদ্ধতির ক্রমবিকাশে এগিয়ে চলা নারী সমাজের মূল শক্তি জাগরণ। ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ, ও মাদকের আগ্রাসন বন্ধ, বিশেষ করে সামাজিক অনাচার দূর করে উপজেলার আইন-শৃঙ্খলা সমুন্নত রেখে নারী জাগরণে তৎপর ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোসা. হাফিজা জেসমিন।

তিনি সেবাগ্রহীতা সকলের কাছে আস্থার নাম। ২০২১ সালের ৭ সেপ্টেম্বর তারিখে এ উপজেলায় ইউএনও হিসেবে যোগদান করার পর থেকেই রুটিন ওয়ার্কের পর থেকে নারী জাগরণে কাজ করছেন তিনি ।

সমাজের অবহেলিত ও সুবিধাবঞ্চিত নারীদের প্রশিক্ষিত করে উদ্যোক্তা তৈরি করে স্বাবলম্বী করা যার অন্যতম লক্ষ্য। লাভজনক ও আয়বর্ধক প্রকল্পে নারীকে সম্পৃক্ত করতে উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর,যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর ও সমবায় অধিদপ্তরের মাধ্যমে ইতোমধ্যে এ উপজেলার কয়েকশ নারীকে প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হয়েছে। যাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নারী আজ সফল উদ্যোক্তা। অবহেলিত নারীর চেতনাবোধকে জাগ্রত করে অর্থনৈতিক মুক্তি ও ক্ষমতায়ন বিশেষ করে জাগরণের আলোকে সমাজে নারীর সম্মানজনক অবস্থান সৃষ্টি যার আশা।

জানা গেছে, নাগরিক সেবা প্রদান প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী একজন ইউএনও উপজেলা পর্যায়ে মন্ত্রণালয়ের সকল নীতিমালা বাস্তবায়ন,বিভাগীয় কর্মকর্তাদের সাথে সমন্বয় সাধন, উন্নয়ন ও প্রশাসনিক কাজের তদারকিকরণের কাজ করে থাকেন। তাছাড়া নারী জাগরণ ও স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা শক্তিশালীকরণ,সামাজিক-সাংস্কৃতিক কার্যক্রম জোরদারকরণে বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

এর বাইরে বাবা-মার ভরণ-পোষণে সন্তানের অনীহা, দরিদ্র পরিবারের মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিশেষ সহায়তা প্রদান, দাম্পত্য কলহের জেরে স্ত্রীকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন ও বিরোধের অবসানকল্পে কাজ করেন ইউএনও জেসমিন। পাশাপাশি কাজ করতে ভুলেন না নারী জাগরণে।

পৌর সদরের বাসিন্দা প্রিয়া চৌধুরী বলেন, আমি মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মাধ্যমে ফুড প্রসেসিংয়ে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি। পাশাপাশি ইউএনও ম্যাডামের পরামর্শ ও সহযোগিতায় আজ আমি স্বাবলম্বী। ২০২২ সনে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী ক্যাটাগরিতে আমি জয়িতা হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছি।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফাতেমাতুজ্জোহরা বলেন, আমরা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মাধ্যমে নারীকে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করতে সেলাই,ফুড প্রসেসিং, ব্লক – বাটিকসহ পাঁচটি ট্রেডে আগ্রহী নারীদের প্রশিক্ষিত করি। যাতে আয়বর্ধক উদ্যোগে সমাজে নারীর অবস্থান সুদৃঢ় হয়। আর সমাজের অনগ্রসর নারীদের জাগরণে ইউএনও ম্যাডাম বরাবরই আন্তরিক।

উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা নিবেদিতা কর বলেন, আমরা নারীকে প্রশিক্ষিত করে সফল উদ্যোক্তা হিসেবে সমাজে নারীর সমান্তরাল অবস্থান নিশ্চিত করতে কাজ করি । পাশাপাশি ইউএনও ম্যাডাম নারীর সফলতা ও জাগরণে সবসময়ই দেখভাল করে থাকেন ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোসা. হাফিজা জেসমিন বলেন, আমি চেষ্টা করি আমার ওপর অর্পিত দায়িত¦ যাথাযথ পালনের। বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি রক্ষা ও সাধারণ মানুষের অধিকার প্রতিষ্টার পাশাপাশি কাক্সিক্ষত সেবাপ্রদানে উপজেলা প্রশাসন প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এ উপজেলায় নারীদের একটা উল্লেখযোগ্য অংশ কৃষি,মৎস্যচাষ,গাভীপালন,সেলাই, ব্লক-বাটিক ও ফুড প্রসেসিংয়ে সফল উদ্যোক্তা। নারীর অগ্রযাত্রা ও জাগরণে নারীকে আত্মসচেতন করার কোনো বিকল্প নেই। এ উপজেলায় সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীর জাগরণ ও অগ্রযাত্রায় খুশি বলে জানান তিনি।

 

জিএন/এইচএসএস 

    ইমেইলঃ news.gouripurnews@gmail.com