ময়মনসিংহমঙ্গলবার , ১২ ডিসেম্বর ২০২৩

বিচ্ছেদের যন্ত্রণায় ৬ বিয়ে! চার স্ত্রী নিয়ে রাজশাহীর জুয়েলের এখন সুখের সংসার

অনলাইন ডেস্ক
ডিসেম্বর ১২, ২০২৩ ১:৪৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

২০১২ সালে প্রেমের পরিণয়ে পারিবারিকভাবে প্রথম বিয়ে করেছিলেন রাজশাহী পবা উপজেলার দাওকান্দি এলাকার যুবক এএসএম জুবায়ের হোসেন জুয়েল মন্ডলের (২৮)। বনিবনা না হওয়ায় ৩৬ দিনের সন্তান রেখে বিচ্ছেদ হয় তাদের। এতে শিশু সন্তানকে বড় করার পাশাপাশি ভুগতে থাকেন বিচ্ছেদের যন্ত্রণায়।

যন্ত্রণা ভুলিয়ে জীবনকে উপভোগ করতে করেন দ্বিতীয় বিয়ে। তার নাম রিমা খাতুনকে। পরে বউ হয়ে আসে রোপা আক্তার। চতুর্থ স্ত্রী ঘরও করেনি বেশিদিন। এরপর তিনি ঘরে আনেন ময়না খাতুনকে। সর্বশেষ স্ত্রী হিসেবে বাড়িতে আসেন হাসি খাতুন। জুয়েল মন্ডলের চার স্ত্রী হলেন- রিমা খাতুন, রোপা আক্তার, ময়না খাতুন ও হাসি খাতুন।

এএসএম জুবায়ের হোসেন জুয়েল মন্ডল জানান, ধর্ম ও দেশের প্রচলিত আইন মেনে জীবনকে উপভোগ করতেই, এতো বিয়ে করেছেন। সুন্নত বা ধর্মীয় কারণে নয়। পরকীয়া থেকে মুক্ত থাকতে দেশীয় আইনকে সুযোগ হিসেবে কাজে লাগিয়েছেন।

তিনি জানান, স্ত্রীদের পরস্পরের মধ্যে কোনো অশান্তি নেই। বাবা-মাসহ চার স্ত্রী ও ৩ সন্তান নিয়ে সুখের সংসার তাদের। বর্তমানে চারজন স্ত্রী তাকে খুব ভালোবাসেন। যত্ন নেন। নিজেকে ভাগ্যবান বলেও দাবি তার।

স্ত্রীদের সঙ্গে জুলেয়ের প্রথম আলাপ হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ কর্মক্ষেত্রে। সঙ্গী হিসেবে পেতে বিয়ের আগে প্রত্যেককে তিনি জানিয়েছিলেন, তার ঘরে বউ আছে। আগের স্ত্রীদের সম্মতিতে আবারও বিয়ের পিড়িঁতে বসতে চান। খোলামেলা আলোচনায় পাত্রীরাও রাজি হন।

এলাকাবাসী জানায়, বর্তমান যুগে যেখানে এক স্ত্রীকে নিয়েই অনেকে হিমশিম খান, যেখানে বিবাহ বিচ্ছেদের মতো ঘটনা ঘটে অহরহ ঘটছে, সেখানে ২৮ বছর বয়সী জুয়েল মন্ডল চার স্ত্রীকে নিয়ে সুখের সংসার করছেন।

জুয়েলের জীবনযাপন একেবারেই সাধারণ। খুব বেশি ধনীও নন তিনি। তবে পান চাষ আর ব্যবসার আয় থেকে ভালোই চলে জীবনযাপন। একের বেশি স্ত্রী থাকা সত্ত্বেও তারা পরস্পর লড়াই না করে সবাই মিলেমিশে থাকেন।

রিমা খাতুন বলেন, সংসারে আমরা সবাই বোনের মতোই থাকি। আমাদের মধ্যে কোন ঝগড়া-বিবাদ নেই। আমাদের সুখের সংসার।

 

জিএন/এইচ

    ইমেইলঃ news.gouripurnews@gmail.com