গৌরীপুরে ফাঁসির দড়ি সঙ্গে নিয়ে পুলিশের বাড়িতে কলেজ ছাত্রীর অবস্থান

মশিউর রহমান কাউসার
প্রকাশিত : সোমবার ৩০ আগস্ট, ২০২১ /

কলেজ ছাত্রীর সঙ্গে তিন বছর ধরে প্রেম। এ সময়ে বিয়ের প্রতিশ্রæতিতে প্রেমিক যুবকের একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক। সর্বশেষ শনিবার রাতে আপত্তিকর অবস্থায় স্থানীয় লোকজনের হাতে ধরা পড়েন দু’জন। এনিয়ে রাতে দেন দরবার চলাকালে কৌশলে পালিয়ে যান প্রেমিক। এদিকে প্রেমিকা ফাঁসির দড়ি সঙ্গে নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে হাজির। ময়মনসিংহের গৌরীপুরে অচিন্তপুর ইউনিয়নে খালিজুরী গ্রামে পুলিশ কনস্টেবল রানার ঘরে বিয়ের দাবিতে রবিবার (২৯ আগস্ট) বিকেল ৩ টা থেকে অবস্থান করছেন ওই কলেজ ছাত্রী।

রানা এ গ্রামের মজনু মিয়ার ছেলে। তিনি বর্তমানে নরসিংদীর পলাশ থানায় পুলিশ কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত আছেন। অপরদিকে ভুক্তভোগী কলেজ ছাত্রীর বাড়ি একই উপজেলার পাশর্^বর্তী গ্রামে।

ভুক্তভোগী তরুণী সাংবাদিকদের জানান, পুলিশ কনস্টেবল রানা বিয়ের প্রতিশ্রæতিতে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলে সর্বস্ব লুটে নিয়েছে। শনিবার (২৮ আগস্ট) রাতে বাড়ির সামনে দু’জনকে আপত্তিকর অবস্থায় ধরে ফেলে স্থানীয় লোকজন। এনিয়ে ওই রাতে সালিশ চলাকালে রানা কৌশলে পালিয়ে যান। তাই পরদিন বিকেল থেকে ফাঁসির দড়ি সঙ্গে নিয়ে রানা ঘরে অবস্থান করছেন তিনি। রানার সঙ্গে বিয়ে না হলে আত্মহত্যা করা ছাড়া আর কোন রাস্তা নেই বলে জানান ওই তরুণী।

তরুণীর বাবা জানান, তার মেয়েকে রানার বাড়িতে মানসিকভাবে নির্যাতন করা হচ্ছে। এ ঘটনায় তিনি থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানান।

এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে রানার ০১৯১০-১২৩৭৫০ এই মোবাইল নম্বরে একাধিকবার কল করা হলে সংযোগটি বন্ধ পাওয়া যায়। তাছাড়া রানা বাড়ির লোকজন এ নিয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ খান আব্দুল হালিম সিদ্দীকী সাংবাদিকদের জানান, এ ঘটনায় থানায় কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানান তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :